সকাল ১০:৪৫ মঙ্গলবার ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ২৯শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি

হোম খেলা খুলনাকে হারিয়ে প্লে-অফ নিশ্চিত করল ঢাকা

খুলনাকে হারিয়ে প্লে-অফ নিশ্চিত করল ঢাকা

লিখেছেন sayeed
Spread the love

বিসিবি আয়োজিত বঙ্গবন্ধু টি-২০ টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে খুলনা জেমকনকে হারিয়ে প্লে-অফ নিশ্চিত করল ঢাকা। সাব্বির রহমানের ফিফটির সঙ্গে নাইম শেখ ও আকবর আলির ঝড়ো ব্যাটে ১৭৯ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় ঢাকা। জবাবে খুলনা অলআউট হয়ে গেছে ১৫৯ রান। ফলে ২০ রানের জয়ে তৃতীয় দল হিসেবে প্লে-অফে পৌঁছে গেছে মুশফিকুর রহীমের দল।

জয়ের লক্ষে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে খুলনা। একপ্রান্ত ধরে রেখে জহুরুল ইসলাম অমি ফিফটি করলেও হতাশ করেন টপঅর্ডারের অন্য ব্যাটসম্যানরা। আসরে নিজের প্রথম ফিফটিতে ৩৬ বলে ৫৩ রান করেন জহুরুল।

হতাশ করেন জাকির হাসান (১), সাকিব আল হাসান (৭), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (২৩), আরিফুল হক (৭) ও মাশরাফি বিন মর্তুজারা (১)। আশা জাগিয়েছিলেন শামীম পাটোয়ারি, মাত্র ৯ বলে খেলেন ২৪ রানের ঝড়ো ইনিংস। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা কাজে লাগেনি। শেষদিকের ব্যাটসম্যান হাসান মাহমুদ ৯ বলে ১৫ রান করলেও জয়ের ব্যবধান কমে ঢাকার।

খুলনাকে ১৫৯ রানে অলআউট করার পথে একাই ৫ উইকেট নিয়েছেন ঢাকার অফস্পিনার রবিউল ইসলাম রবি, ৩.৩ ওভারে ২৭ রান খরচায় ৫ উইকেট নেন তিনি। এছাড়া দুই পেসার রুবেল হোসেন ও মুক্তার আলি নেন ২টি করে উইকেট। অন্য উইকেটটি নেন নাসুম আহমেদ।

এর আগে টস জতে ব্যাট করতে নেমে মাশরাফির করা প্রথম ওভার থেকে মাত্র ৩ রান। কিন্তু পরের ওভারেই সাকিবের ওপর চড়াও হন ঢাকার বাঁহাতি ওপেনার নাইম শেখ। সেই ওভারে হাঁকান ৪টি ছক্কা। প্রথম দুই বলে সোজা সীমানাছাড়া করেন লংঅন দিয়ে। পরে আবার শেষ দুই বলে হাঁকান স্কয়ার লেগ ও কাউ কর্নার দিয়ে।

এমন উড়ন্ত শুরুটা অবশ্য ধরে রাখতে পারেননি নাইম। মাশরাফির দ্বিতীয় ওভারে ফের ৩ রান নেয় ঢাকা। চতুর্থ ওভারে শহীদুল ইসলামের ওভারের চতুর্থ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে পরের ডেলিভারিতেই সাজঘরের পথ ধরেন নাইম শেখ। আউট হওয়ার আগে ৫ ছক্কার মারে ১৭ বলে ৩৬ রান করেন তিনি। উদ্বোধনী জুটি ভাঙে ৪১ রানে।

যতক্ষণ নাইম হাঁকাচ্ছিলেন, হাত খোলেননি সাব্বির রহমান। তবে উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর তিন নম্বরে নামা আলআমিন জুনিয়রকে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন সাব্বির। দুই প্রান্ত থেকেই চালিয়ে খেলতে থাকেন সাব্বির ও আলআমিন। বেশি আক্রমণাত্মক ছিলেন আলআমিনই। দুজনের জুটিতে আসে ৪২ বলে ৬৪ রান।

ইনিংসের ১১তম ওভারে ২৫ বলে ৩৬ রান করে আউট হন আলআমিন। আলআমিন আউট হওয়ার ঠিক পরের বলেই ডাউন দ্য উইকেটে বড় ছক্কা হাঁকান সাব্বির। ইনিংসের ১১ ওভারেই তাদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১১১ রান। কিন্তু ১২তম ওভারেই আসে বড় ধাক্কা।
মাশরাফি বিন মর্তুজার ব্যক্তিগত শেষ ওভারের শেষ বলে নিজের উইকেট হারান ঢাকার অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম (৫ বলে ৩)।

মুশফিককে অল্পেই ফেরানোর পর ইনফর্ম ইয়াসির রাব্বিকে রানের খাতাও খুলতে দেয়নি ঢাকা। মাহমুদউল্লাহর দারুণ থ্রোতে কোনো বল খেলার আগেই রানআউট হয়ে যান ইয়াসির। নাজমুল অপুর করা ১৫তম ওভারে ফের দ্বিতীয় ওভারের পুনর্মঞ্চায়ন করেন আকবর আলি। তবে আকবরের ইনিংসও বড় হয়নি। হাসান মাহমুদের ওভারে মাশরাফির হাতে ক্যাচ দেয়ার আগে মাত্র ১৪ বলে খেলেন ৩১ রানের ঝড়ো ইনিংস।

অন্যদিকে নিজের ক্যারিয়ারের ১৬তম ফিফটি তুলে নেন সাব্বির রহমান। তিনি আউট হন ১৭তম ওভারে। সাজঘরে ফেরার আগে ৩৮ বলে ৫ চার ও ৩ ছয়ের মারে ৩৮ বলে ৫৬ রান করেন সাব্বির। তিনি ফেরার পর শেষের ২০ বলে মাত্র ১৩ রান নিতে পেরেছে ঢাকা। তাদের ইনিংস থামে ৭ উইকেটে ১৭৯ রানে।

You may also like

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More