দুপুর ১:৫২ শনিবার ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ ২০শে রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

হোম দেশ পেট্রোল ঢেলে স্ত্রীর নিম্নাঙ্গ পুড়িয়ে চামড়া টেনে টেনে তোলেন স্বামী (ভিডিও)

পেট্রোল ঢেলে স্ত্রীর নিম্নাঙ্গ পুড়িয়ে চামড়া টেনে টেনে তোলেন স্বামী (ভিডিও)

লিখেছেন মামুন শেখ
পেট্রোল ঢেলে স্ত্রীর নিম্নাঙ্গ পুড়িয়ে চামড়া টেনে টেনে তোলেন স্বামী (ভিডিও)-durantobd.com
Spread the love

‘তোর বিষ কমাচ্ছি’ বলেই ইয়াসমিনের যোনি ও পায়ুপথসহ পুরো নিম্নাঙ্গে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন স্বামী। শরীর ভর্তি দাউদাউ করে জ্বলন্ত লেলিহান শিখা। ৭ বছরের সংসার এবং ৪ বছর বয়সী সন্তানের দোহাই দিয়ে অসহায় ইয়াসমিন স্বামীর কাছে প্রাণ ভিক্ষা চাইলেও স্বামী রাফেলের তাতে কোন ভ্রূক্ষেপ নেই। উপায়ান্তর না দেখে নিজেকে রক্ষার শেষ চেষ্টা হিসেবে ঘর থেকে বের হবার চেষ্টা করেন ইয়াসমিন। কিন্তু হায়, এখানেও স্বামীর বাঁধা। পুড়ে মরতে হবে, বের হওয়া চলবে না।

পুড়তে পুড়তে এক পর্যায়ে শরীরে লেপ্টে থাকা পেট্রল ফুরিয়ে গেলে ইয়াসমিনের শরীরের আগুনও নিভে যায়। কিন্তু নেভেনি রাফেলের নিষ্ঠুরতার আগুন। এবার নতুন খেলায় মাতে সে। স্ত্রীর পোড়া শরীর থেকে কাবাব করা মুরগির মতো করে চামড়া তুলে নিতে থাকেন দুই হাতের ঘষায়। একেক ঘর্ষণের সাথে খসে পড়তে থাকে পুড়ে যাওয়া চামড়া, সাথে ইয়াসমিনের মরন আর্তচিৎকার। কিন্তু তাতেও রাফেলের নিষ্ঠুরতায় কোন হেরফের ঘটে না। উল্টো মেয়ের যন্ত্রণার খানিকটা ভাগ বাবা-মাকেও দিতে ফোন করেন ইয়াসমিনের বাসায়। এত গভীর রাতে জামাইর ফোন পেয়ে উৎকণ্ঠিত শাশুড়ি ফোন তুলতেই তাকে সোজা জানিয়ে দেন, ‘তোর মেয়েকে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছি। এসে নিয়ে যা’। রাফেলের পাশবিকতা-হিংস্রতার এখানেই শেষ নয়। পৈশাচিকতার চূড়ান্ত উদাহরণ সৃষ্টি করে আর্তচিৎকার করতে থাকা স্ত্রীকে রেখেই পাশের কক্ষে গিয়ে দিব্যি ঘুমিয়েও পড়েন তিনি।

পৈশাচিকতা এখানেই শেষ নয়

উপরের ঘটনাবলির বর্ণনা শুনে যদি অবাক হয়ে থাকেন, গ্রেপ্তারের পর রাফেলের আচরণের বিষয়ে জানলে হতবাক হবেন নিশ্চিত। আজ বিকেলে পালানোর চেষ্টারত অবস্থায় আসামি রাফেলকে গ্রেপ্তার করি আমরা। প্রেপ্তারের বিষয়ে তার কোন বিকার নেই। নেই নিজের কৃতকর্মের জন্য ন্যূনতম অনুতাপবোধও। উল্টো খোশমেজাজের সঙ্গে জানালেন, তিনি গরুর মাংস দিয়ে ভাত খেতে চান। থানার হাজতে বসে কাউকে এত নির্বিকারভাবে কথা বলতে আমি কোনদিন শুনিনি।
গুরুতর আহত ইয়াসমিনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রিয় ইয়াসমিন, পোড়া শরীর আপনাকে যেই যন্ত্রণা দিয়ে চলেছে, সেই যন্ত্রণার ভাগ হয়তো আমরা নিতে পারব না। কিন্তু প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, আপনাকে পুড়িয়ে দেওয়া রাফেলকে যেভাবে আমরা পালিয়ে যাওয়ার আগেই গ্রেপ্তার করেছি, একইভাবে এই মামলায় ন্যায়বিচার নিশ্চিতে যা যা করা প্রয়োজন, তার সবকিছুই করা হবে। এখন দোয়া আর অপেক্ষা- শুধু আপনি সুস্থ হয়ে ফিরুন।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের এএসপি আনোয়ার হোসেন (শামীম আনোয়ার) ফেসবুকে কথাগুলো লিখেছেন।

ভুক্তভোগী নারীর আর্তনাদ

এএসপি আনোয়ার হোসেন একটি ভিডিওও শেয়ার করেছেন। যেখানে ওই নারী বলছেন, ‘আমার জ্বলতেছে, অনেক জ্বলতেছে…। সহ্য করতে পারতেছি না। অনেক বলছি, তুমি এমন কাজ করিও না। আমার অনেক কষ্ট হইতেছে, আমি কিছু করব না, তুমি এটা করিও না…আমার প্রচুর জ্বলতেছে.. সে বলে “তোরে মেরেই ফেলব, তুই মরে যা…!”

এ সময় পুলিশ কর্মকর্তা তাকে আশ্বাস দেন; বলেন, ‘আমরা আপনার স্বামীকে গ্রেফতার করেছি। সে এখন আমাদের হেফাজতে আছে। কোর্টের মাধ্যমে আইনি প্রক্রিয়ায় আমরা তার সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করব। আপনাকে যে যন্ত্রণা দিয়েছে, তার সেই যন্ত্রণার ব্যবস্থা আমরা করব। আপনি সুস্থ হয়ে উঠুন।’

আরো পড়ুন:

কুয়েতে সততার জন্য সম্মাননা পেলেন বাংলাদেশি মেজবাহ

আমিরাত প্রবাসীরা বড় সুখবর পেলেন

এবার শাকিবের নায়িকা কৌশানি

You may also like

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More