বিকাল ৫:৩৭ রবিবার ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ২৯শে সফর, ১৪৪৪ হিজরি

হোম দেশ স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন পূরণে ১৭ লাখ টাকা দিয়ে হাতি কিনলেন কৃষক!

স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন পূরণে ১৭ লাখ টাকা দিয়ে হাতি কিনলেন কৃষক!

লিখেছেন dipok dip
Spread the love

লালমনিরহাটের কৃষক দুলাল চন্দ্র। তার স্ত্রীর প্রতি পরম ইশ্বরের গায়েবী নির্দেশনা আর ভালবাসায় জমি-জমা বিক্রি করে কিনেছেন হাতি। এ ঘটনায় উৎসুক জনতার ঢল নেমেছে দুলাল চন্দ্রের বাড়িতে।

লাললমনিরহাট সদর উপজেলার পঞ্চগ্রাম ইউনিয়নের একটি গ্রামের নাম রতিধর। ওই গ্রামের পথ ধরে চলছে এখন হাতি। এ যেন গরীবের বাড়িতে হাতির পাঁ।

হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালার মতো তা দেখতে যেন উৎসুক জনতার কমতি নেই। সাধারন কৃষক দুলাল এর দাবী তার স্ত্রী তুলশী রানীর উপর দেবযোগ আছে। প্রায়শই দেব ভরকরে তার স্ত্রী তুলশী রানীর উপর।

এরই প্রেক্ষিতে পক্ষকাল আগে খোদ পরমেশ্বর তাকে গায়েবিভাবে হাতী কেনার নির্দেশনা দেন, তাও আবার শুনতে পায় দুলাল চন্দ্র। পরমেশ্বরের এমন নির্দেশনা নতুন নয়। এর আগেও খরগোশ, রাজহাঁস, রামছাগল,ঘোড়া কিনেছিল দুলাল। তাই বলে এবার আস্ত হাতী! পরমেশ্বরের সন্তুষ্টি লাভ আর তুলশী রানীর বাসনা পুরনে একবিঘা জমি বিত্রি করে প্রায় ১৭ লাখ টাকা দিয়ে হাতি কেনেন দুলাল চন্দ্র।

সেটিও খুঁজতে গিয়েছিল মৌলবীবাজারে। সেই সুদুর মৌলভীবাজারের রাজকান্দী গ্রাম থেকে কেনেন হাতি। এই হাতি নিয়ে লালমনিরহাট উপজেলার রতিদর দুলালের গ্রামের বাড়ি পৌছাতে সময় লাগে লেগেছে পাঁচ দিন।

জানা যায়, এই হাতি নিয়ে আসা পর্যন্ত এই পাঁচদিন উপবাস করেছেন দুলালের স্ত্রী তুলশী রানী।

শুধু হাতি কেনাই নয় সাথে থাকা-খাওয়াসহ মাসিক ১৫ হাজার টাকা বেতনে মৌলভীবাজার থেকে হাতির পরিচর্যার জন্য নিয়ে আসেন ইব্রাহিম নামের এক মাহুথকেও!

গ্রামীন জনপদে হাতি! সেটিও আবার পরমেশ্বর এর নির্দেশনা পূরণে? এ খবর মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে। তার সাথে পাল্লা দিয়ে একনজর এই হাতি দেখতে বাড়ছে উৎসুক জনতার ভিড়।

ঘটনাস্থলেই কথা হয় পার্শবর্তি কুড়িগ্রাম জেলার রাজার উপজেলার জনৈক হীরেন্দ্র রায় এর সাথে। তিনি জানান, শুধু হাতিই না, এর আগে পরমেশ্বর তুলশী রাণীকে গায়েবিভাবে ও স্বপ্নে খরগোশ, রাজহাঁস, রামছাগল, ঘোড়া কিনতে বলেছিলেন। তারা সেটি করেছেন,তবে এবার হাতি কেনার বিষয়টির একটু ভিন্ন।

স্থানীয় রামায়ণ নামের একজন জানান,এঘটনাটি তারা বিশ্বাস করেন ও দুলাল তুলশীর পরমেশ্বর ভক্তিতে এলাকার মানুষের মাঝে অনেকটাই ধর্মীয় অনুভুতীর ভীত আরো শক্ত করেছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি মোঃ দেলোয়ার হোসেন জানান, তিনি বিষয়টি শুনে রতিধরের বাড়ি গিয়ে বাস্তবতা অনুধাবন করেন। তিনি জানান,ধর্মীয় বিষয়টি একান্তই তাদের। তবে হাতি কেনা ও স্ত্রীর ভালবাসায় দুলালের কোন জুড়ি নেই।

এই হাতি নিয়ে এখন আলোচনা বইছে লালমনিরহাট জুড়ে। আর দুলাল-তুলশীর পরমেশ্বর বন্দনার পরের অধ্যায়ের অপেক্ষা এখন এই অঞ্চলের সাধারন মানুষের।

You may also like

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More