রাত ৩:৩২ বুধবার ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ২রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

হোম বিদেশ বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসেবে সুপারসনিক ক্ষমতা দেখালো ভারত (ভিডিও)

বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসেবে সুপারসনিক ক্ষমতা দেখালো ভারত (ভিডিও)

লিখেছেন মামুন শেখ
Spread the love

বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসেবে হাইপাসনিক যুগে প্রবেশ করলো ভারত। সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সময় সকাল ১১টার দিকে ওড়িশার বালাসোরে এপিজে আব্দুল কালাম টেস্টিং রেঞ্জ থেকে এই হাইপারসনিক টেস্ট ডেমোনস্ট্রেটর ভেহিকেল (এইচএসটিডিভি) টি সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়।

শব্দের চেয়ে ছ’গুণ গতিতে ছুটতে সক্ষম এই ক্ষেপণাস্ত্র।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভাইপারসনিক যুগে প্রবেশ করা চতুর্থ দেশ ভারত। বিশ্বের আর মাত্র তিনটি দেশ-আমেরিকা, রাশিয়া এবং চীনের কাছে এই প্রযুক্তি আছে।

ভারতেরই হাইপারসনিক ভেডিকলটি অগ্নি মিসাইল বুস্টার ব্যবহার করে পরীক্ষা করা হয়। সেই বুস্টার ভেহিকেলটিকে ৩০ কিলোমিটার উচ্চতায় নিয়ে যায়। তারপর অগ্নি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় সেটি। সফলভাবে স্ক্র্যামজেট ইঞ্জিন চালু করা হয়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের দাবি, এটি সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি করেছে ডিফেন্স রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও)।

ডিআরডিও’র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পরীক্ষাটি সম্পূর্ণ সফল হয়েছে। পরীক্ষার প্রতিটি মাপকাঠিতেই সফলভাবে উতরে গেছে এইএসটিডিভি। ফলে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ভারতের অস্ত্রভাণ্ডারে চলে আসবে দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই হাইপারসনিক মিসাইল।

সুপারসনিক এবং হাইপারসনিকের পার্থক্য:

শব্দের চেয়ে দ্রুতগতিসম্পন্ন হলেই তাকে সুপারসনিক বলা হয়। এই ধরণের প্রযুক্তির ক্ষেপণাস্ত্র অনেক দেশের কাছেই আছে।

তবে হাইপারসনিক হলো- শব্দের চেয়ে ছয় গুণ বেশি গতিসম্পন্ন। প্রতি সেকেন্ডে এই ধরণের ক্ষেপণাস্ত্র দুই কিলোমিটারের বেশি গতিতে ছুটতে পারে। এই ধরণের ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ন্ত্রণ করাও তুলনামূলক সহজ। প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের দাবি, শত্রুপক্ষ এর অবস্থান কার্যত ধরতেই পারে না।

You may also like

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More