বিকাল ৫:৫৯ সোমবার ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ৭ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

হোম বিনোদন যেভাবে ইমন থেকে সালমান শাহ

যেভাবে ইমন থেকে সালমান শাহ

লিখেছেন Fahmid Souror
Spread the love

মাত্র ৪ বছরের ক্যারিয়ার।  সব মিলিয়ে অভিনয় করেছেন মোটে ২৭টি সিনেমায়।  চলচ্চিত্র জগতে অভিনয় আর চারপাশের মানুষগুলোকে বুঝতেই লেগে যায় ৪-৫ বছর।  তবে সালমান শাহ তো আর দশজনের মতো নন।  চার বছরের অভিনয় জীবনে বাংলা চলচ্চিত্র জগতের সবচেয়ে উজ্জল তারায় পরিণত হন তিনি।  নায়ক হতেই যেখানে অন্যদের সারাজীবন লেগে যায় ঢাকাই সিনেমা অঙ্গনে সালমান মহানায়ক হয়েছিলেন মাত্র চার বছরে।

১৯৯৬ সালের আজকের দিনে (৬ সেপ্টেম্বর) কোটি সিনেমাপ্রেমীকে চোখের জলে ভাসিয়ে পৃথিবী ত্যাগ করেন তিনি।  পৃথিবীর ইতিহাসে এত অল্প সময়ে বোধহয় এতো জনপ্রিয় নায়ক ছিলেন না আর কেউই।  আজ সালমান শাহ এর মৃত্যুবার্ষিকী। ‘দুরন্ত নিউজ’ এর পক্ষ থেকে আমরা এই অকালপ্রয়াত নায়কের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।

১৫ সেপ্টেম্বর ১৯৭১। বাংলাদেশের আপামর জনতা যখন স্বাধীনতার জন্য সম্মুখ সমরে লড়ছে ঠিক এমন সময় সিলেটে জকিগঞ্জে নানার বাড়িতে পৃথিবীর আলো দেখেন বাংলা চলচ্চিত্র জগতের সবচেয়ে ক্ষণজন্মা মহানায়ক।  সিনেমা অঙ্গনে সালমান শাহ বলে পরিচিত হলেও তার প্রকৃত নাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন।  জন্ম সিলেটে হলেও ঢাকাতেই বেড়ে ওঠেন সালমান খ্যাত ইমন।

ছোট থেকেই অভিনয়ের প্রতি বিশেষ টান ছিল সালমান শাহর।  ১৯৮৫ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে ‘কথার কথা’ নামে ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে ‘নামটি ছিল তার অপূর্ব’ শিরোনামে একটি গানে মাদকাসক্ত তরুণের চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি।  মজার বিষয় হলো সেই গানে মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেন সালমানের মা নীলা চৌধুরী।  সেই বছরই পেয়ে যান টিভি নাটকে অভিনয়ের প্রস্তাব।  নাটকের নাম ‘আকাশ ছোঁয়া’।

এরপর দেয়াল, সব পাখি ঘরে ফিরে, সৈকতে সারস, নয়ন, ‘পাথর সময়’ ‘ইতিকথা’সহ আরো বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেন তিনি।  ১৯৯২ সালে চলচ্চ্রিত পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান দায়িত্ব পান ১৯৮৮ সালে মুক্তি পাওয়া জনপ্রিয় ভারতীয় চলচ্চিত্র ‘কেয়ামত সে কেয়ামত তক’ সিনেমার রিকেম বানানোর।  সোহান প্রথমেই জুহি চাওলার মতো দেখতে সুদর্শন একজন নায়িকার খোঁজ শুরু করেন। ভাগ্যবশত মৌসুমীকে পেয়েও যান তিনি। তবে মিলছিল না আমির খানের মতো দেখতে ‘চকলেট বয়’ টাইপের নায়ক।  অবশেষ বাংলা চলচ্চিত্র জগতের কিংবদন্তী অভিনেতা আলমগীরের প্রথম স্ত্রী খোশনুর আলমগীর পরিচালন সোহানকে সালমান শাহ এর সন্ধান দেন।

ধানমন্ডির একটি রেস্টুরেন্টে সালমানকে প্রথম দর্শনেই ভালো লেগে যায় সোহানের। এর পরেরটা তো ইতিহাস আর সেটা সবারই জানা।

চার বছরের সংক্ষিপ ক্যারিয়ারে মোট ২৭টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন সালমান শাহ। যার দুটি ছাড়া বাকি সবগুলোই ছিল ব্যবসা সফল।  ৯০ দশকে সালমান ছিলেন তরুণ সমাজের ফ্যাশন আইকন ছিলেন তিনি। তার কানে দুল, কালো টুপি, ছেড়া জিন্স, স্কার্ফ সবই লুফে নিয়েছিলেন তরুণরা।

১৯৯৬ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর দিনটি ছিল শুক্রবার।  সকালের রৌদ্রচ্ছল আকাশ বিকেলের পরই কালো হতে শুরু করে।  এমন সময় বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারে ভেসে আসতে থাকে ‘সালমান শাহ আর বেঁচে নেই।  আজ সকলে নিজ বাসায় পাওয়া যায় তার মৃতদেহ। ’ সারা দেশে শুরু হয় শোকের মাতম।  সে সময় সারা দেশজুড়ে সালমানের অসংখ্য ভক্ত তাঁর মৃত্যু মেনে নিতে না পারায় বেশ কয়েকজন তরুণী আত্মহত্যা করেন বলেও খবর আসে পত্রিকায়।  লাখো কোটি ভক্তকে কাঁদিয়ে সালমান পাড়ি জমান অন্য এক দেশে, যেখান থেকে কেউ ফেরে না।

২৪ বছর পার হলেও সালমানের মৃত্যুর প্রকৃত কারণ আজো এক রহস্য হয়ে আছে।  সালমানের মৃত্যুর তদন্তকারী সংস্থাগুলি জানিয়েছে, আত্মহত্যাই করেছেন সালমান।  ক্ষণজন্সা এই নায়কের আতামহত্যার পেছনে নায়িকা শাবনূরের অতিরিক্ত অন্তরঙ্গতা, স্ত্রী সামিয়ার সাথে দাম্পত্য কলহ, মাত্রাতিরিক্ত আবেগপ্রবণতাকে দায়ী করেন তারা।  তবে মা নীলা চৌধুরী মানতে রাজি নন যে, তার ছেলে আত্মহত্য করেছেন।  সালমানের মৃত্যু আজো একটি বড় রহস্য হয়ে রয়েছে।

যতদিন বাংলা চলচ্চিত্র থাকবে ততদিন দর্শকদের মনে চির অম্লান হয়ে সালমান শাহ।

 

You may also like

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More