বিকাল ৪:২০ মঙ্গলবার ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ৫ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

হোম বিনোদন সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন সুশান্তের বান্ধবী রিয়া!

সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন সুশান্তের বান্ধবী রিয়া!

লিখেছেন dipok dip
Spread the love

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুতদন্ত ক্রমশই জটিল হয়ে উঠছে। অভিনেতার মৃত্যুর পরই স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে সুশান্তের চর্চিত গার্লফ্রেন্ড অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছিলেন সুশান্ত-ভক্তরা। মঙ্গলবার সুশান্তের বাবা কেকে সিং খোদ রিয়ার বিরুদ্ধে এফআইআর আদায়ের করেছেন পটনার রাজেন্দ্রনগর থানায়। তার একদিনের মধ্যেই এবার দেশের সর্বোচ্চ আদালতের দ্বারস্থ রিয়া চক্রবর্তী। সুপ্রিম কোর্টে বুধবার রিয়া আবেদন করেছেন যাতে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু তদন্তকে বিহার থেকে মুম্বাইতে স্থানান্তরের জন্য। রিয়ার আইনজীবী সতীশ মানেশিনডে এদিন সুপ্রিম কোর্টের কাছে এই আবেদন করেছেন।

মুম্বাই পুলিশ সূত্রে খবর, মঙ্গলবার রাতেই নাকি রিয়ার সঙ্গে কথা হয়েছে তাদের। বিহার পুলিশও খুব শীঘ্রই কথা বলবে রিয়ার সঙ্গে। রিয়াও আগে থেকেই কথা বলে রাখছেন তাঁর আইনজীবীর সঙ্গে। গতকাল রাতেই রিয়ার আইনজীবী আনন্দিনী ফার্নান্ডেজকে অভিনেত্রীর বাড়ি থেকে বের হতে দেখা গিয়েছে। সেইসাথে আগাম জামিনের ব্যবস্থা করছেন রিয়া।

গতকালই বিহারের পুলিশের কাছে সুশান্তের বাবা রিয়ার নামে একাধিক অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন। শুধু রিয়াই নন, বিহার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, এফআইআর-এ রিয়ার ভাই শৌভিক চক্রবর্তী-সহ পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্যের নাম রয়েছে। সুশান্তের প্রেমিকা রিয়ার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৬ (আত্মহত্যায় প্ররোচনা), ৩৪১ এবং ৩৪২(জোর করে ধরে রাখা), ৩৮০ (বাড়ির জিনিস চুরি), ৪০৬ (চুক্তিভঙ্গ) এবং ৪২০ (প্রতারণা) ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। সূত্রের খবর, বিহার পুলিশের একটি দল মঙ্গলবারই মুম্বইতে পৌঁছেছে। মহিলা পুলিশেরও একটি দল তৈরি রাখা হয়েছে।

সুশান্তের মৃত্যুর পর পরই বান্ধবী রিয়াকে জেরা করেছিল মুম্বাই পুলিশ। তাঁর বয়ানও রেকর্ড করা হয়েছিল। তাঁকে জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছিল, ইউরোপ ট্যুরে সুশান্তের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করেছিলেন রিয়া। অভিনেতার এক দেহরক্ষীকেও বহিষ্কার করেছিলেন তিনি। শুধু তাই নয়, সুশান্তের কোম্পানিতেও শেয়ার ছিল রিয়া এবং তাঁর ভাইয়ের।

এছাড়াও রিয়ার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলেছেন সুশান্তের বাবা। তাঁর কথায় রিয়ার প্রথম থেকেই নজর ছিল তাঁর ছেলের অর্থ এবং সম্পত্তির দিকে। সুশান্তের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে শপিং আর বিদেশ ভ্রমণই নয় জোর করে খুলিয়েছিলেন তিনটি কোম্পানি। এখানেই শেষ নয়। সুশান্তের বাবা কেকে কিং তাঁর এফআইআর-এ লেখেন তাঁর ছেলেকে চেন দিয়ে বেঁধে রাখতেন রিয়া। এমনও অভিযোগ করেছে সুশান্ত ঘনিষ্ঠরাই।

সুত্র: এই সময়।

You may also like

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More