সকাল ৮:৫৯ শনিবার ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ১৫ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

হোম দেশ মহেশপুরে ৭ মাসের সন্তান সম্ভবা নারী স্বামী কে ফিরে পেতে ঘুরছেন দ্বারে দ্বারে

মহেশপুরে ৭ মাসের সন্তান সম্ভবা নারী স্বামী কে ফিরে পেতে ঘুরছেন দ্বারে দ্বারে

লিখেছেন dipok dip
Spread the love

আব্দুর রহিম, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:

ঢাকার মুন্সিগঞ্জের ৭মাসের এক সন্তান সম্ভাবা নারী ঝিনাইদহের মহেশপুরে এসে স্বামী ফিরে পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। পাচ্ছে না তার স্বামীর বাড়ীতে উঠতে পারছে না কোন বিচার, এই অবস্থায় তিনি বৃষ্টির মধ্যে বিচার পাওয়ার আসায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পৌরসভার মেয়র ও থানার ওসির শরনাপন্ন হওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। কিন্তু তিনি কোথাও চেনা জানা না থাকায় রাস্তার ধারে বসে স্থানীয় ভাল মানুষ খুজছে। যে তাকে আইনগত সহয়তার পথ দেখাতে পারে।

সোমবার বিকালে উপজেলা পরিষদের মসজিদের সামনে বৃষ্টির মধ্যে এক ৭মাসের সন্তান সম্ভাবা নারী দাড়িয়ে কি যেন গভীর ভাবনার মধ্যে ডুবে আছে। কাছে যেতেই গাড়ীর সামনে প্রেস লেখা দেখে তিনি আমাকে থামতে বলেন। বলেন ভাই একটু উপকার করবেন আমাকে।

আমার বাড়ী ঢাকার মুন্সি গঞ্জে নাম জান্নাতুল ফেরদোস সুরাইয়া (২১) পিতা মৃত কাজী বাচ্চু মিয়া ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে এই উপজেলার কাজীর বেড় ইউনিয়নের নতুন কোলা গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে ইশাখান শাকিল (২৩) এর সাথে ঢাকায় তার কাকা আব্বাস এর মাধ্যমে আমাদের দেখাশুনা করে ৫লক্ষ টাকার দেন মোহর ধার্য করে ইসলামী সরিয়া মোতাবেক কাজীর মাধ্যমে বিবাহ হয়।

সেই থেকে আমরা স্বামী স্ত্রী ঢাকায় বসবাস করছিলাম । এর মধ্যে আমার গর্ভে সন্তান আসে । সে একটা বে সরকারী ফার্মে চাকুরী করে। পরে করোনাভাইরাস এর কারণে আমাকে আমার স্বামী তার বাড়ী নতুন কোলাই নিয়ে আসে। কয়েকদিন রেখে সে ঢাকার কথা বলে বাড়ী থেকে চলে যায়। এই অবস্থায় ২৮/০৬/২০ তারিখে আমাকে ডিভোর্স দেওয়া হয়েছে বলে একটি চিঠি ধরিয়ে আমাকে বাড়ী থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে আমার গর্ভে ৭মাসের একটি বাচ্চা রয়েছে। আমি আইনগত ব্যবস্থা চেয়ে তিন জন কে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছি ।

এ অবস্থায় আমি কার কাছে যেয়ে আমার স্বামী কে ফিরে পাবো । এবং আমার গর্ভের সন্তানের কি অবস্থা হবে। তিনি দেশের আইন প্রয়োগকারী ও মানবাধিকার সংস্থার কাছে বিচার প্রার্থনা করেছেন।

You may also like

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More